AL-QURAN

 

আল কোরআন থেকে :-

 

“অতঃপর যখন তোমরা নামায সম্পন্ন কর, তখন দন্ডায়মান, উপবিষ্ট ও শায়িত অবস্থায় আল্লাহকে স্মরণ কর। অতঃপর যখন বিপদমুক্ত হয়ে যাও, তখন নামায ঠিক করে পড়। নিশ্চয় নামায মুসলমানদের উপর ফরয নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে।”——-[ আল কোরআন- ৪:১০৩ ]
“When ye pass (Congregational) prayers, celebrate Allah’s praises, standing, sitting down, or lying down on your sides; but when ye are free from danger, set up Regular Prayers: For such prayers are enjoined on believers at stated times.”—–[ Al Quran-4:103 ]

“আর দিনের দুই প্রান্তেই নামায ঠিক রাখবে, এবং রাতের প্রান্তভাগে পূর্ণ কাজ অবশ্যই পাপ দূর করে দেয়, যারা স্মরণ রাখে তাদের জন্য এটি এক মহা স্মারক।”—– [ আল কোরআন- ১১:১১৪ ]
“And establish regular prayers at the two ends of the day and at the approaches of the night: For those things, that are good remove those that are evil: Be that the word of remembrance to those who remember (their Lord)”—–[ Al Quran-11:114 ]

“সূর্য ঢলে পড়ার সময় থেকে রাত্রির অন্ধকার পর্যন্ত নামায কায়েম করুন এবং ফজরের কোরআন পাঠও। নিশ্চয় ফজরের কোরআন পাঠ মুখোমুখি হয়।”—– [ আল কোরআন- ১৭:৭৮ ]
“Establish regular prayers – at the sun’s decline till the darkness of the night, and the morning prayer and reading: for the prayer and reading in the morning carry their testimony.”—–[ Al Quran-17:78 ]

“সুতরাং এরা যা বলে সে বিষয়ে ধৈর্য্য ধারণ করুন এবং আপনার পালনকর্তার প্রশংসা পবিত্রতা ও মহিমা ঘোষনা করুন সূর্যোদয়ের পূর্বে, সূর্যাস্তের পূর্বে এবং পবিত্রতা ও মহিমা ঘোষনা করুন রাত্রির কিছু অংশ ও দিবাভাগে, সম্ভবতঃ তাতে আপনি সন্তুষ্ট হবেন।”—– [ আল কোরআন- ২০:১৩০ ]
“Therefore be patient with what they say, and celebrate (constantly) the praises of thy Lord, before the rising of the sun, and before its setting; yea, celebrate them for part of the hours of the night, and at the sides of the day: that thou mayest have (spiritual) joy.”—–[ Al Quran-20:130 ]

“সে সমস্ত লোক যারা নামায প্রতিষ্ঠা করে এবং আমি তাদেরকে যে রুযী দিয়েছি তা থেকে ব্যয় করে। তারাই হল সত্যিকার ঈমানদার! তাদের জন্য রয়েছে স্বীয় পরওয়ারদেগারের নিকট মর্যাদা, ক্ষমা এবং সম্মানজনক রুযী।”—– [ আল কোরআন- ৮:৩-৪ ]
“Who establish regular prayers and spend (freely) out of the gifts We have given them for sustenance:Such in truth are the believers: they have grades of dignity with their Lord, and forgiveness, and generous sustenance.”—–[ Al Quran-8:3-4 ]

“যারা সূদ খায় তারা সেই ব্যক্তির ন্যায় দাঁড়াবে যাকে শয়তান স্পর্শ দ্বারা পাগল করে। ইহা এইজন্য যে, তারা বলে, ক্রয়-বিক্রয় তো সূদের মত। অথচ আল্লাহ ক্রয়-বিক্রয়কে হালাল ও সূদকে হারাম করেছেন”—– [ আল কোরআন- ২:২৭৫ ]
“Those who devour usury will not stand except as stand one whom the Evil one by his touch Hath driven to madness. That is because they say: “Trade is like usury,” but Allah hath permitted trade and forbidden usury. “—–[ Al Quran-2:275 ]

***

“হে ঈমানদারেরা ! ধৈর্য ও নামায দ্বারা সাহায্য প্রার্থনা কর, আল্লাহ ধৈর্যশীল লোকদের সঙ্গে রয়েছেন ।”
——(আল কোরআন-সূরা বাকারা : ১৫৩) ।
“O ye who believe ! Seek help in steadfastness and prayer. Lo! Allah is with the steadfast.”
——-(AL QURAN-Sura Baqarah : 153)

“আর যারা আল্লাহর পথে নিহত হয় তাদেরকে মৃত বলো না, এসব লোক প্রকৃতপক্ষে জীবন্ত, কিন্ত তাদের জীবন সম্পর্কে তোমাদের কোন চেতনা হয় না ।”
——(আল কোরআন-সূরা বাকারা : ১৫৪) ।
“And call not those who are slain in the way of Allah ”dead.” Nay, they are living , only ye perceive not .”
——-(AL QURAN-Sura Baqarah : 154)

“আমি নিশ্চয় ভয়, বিপদ, অনশন, জানমালের ক্ষতি এবং আমদানী হ্রাসের দ্বারা তোমাদেরকে পরীক্ষা করব । এসব অবস্থায় যারা ধৈর্য অবলম্বন করে, তাদের সুসংবাদ দাও ।”
——(আল কোরআন-সূরা বাকারা : ১৫৫) ।
“And Surely We shall try you with something of fear and hunger, and loss of wealth and lives and crops; but give glad tidings to the steadfast .”
——-(AL QURAN-Sura Baqarah : 155)

“এবং বিপদ উপস্থিত হলে যারা বলে-আমরা আল্লাহরই জন্য, আল্লাহর নিকটই আমাদেরকে প্রত্যাবর্তন করতে হবে ।”
——(আল কোরআন-সূরা বাকারা : ১৫৬) ।
“Who say , when a misfortune striketh them: Lo! we are Allah’s and Lo ! unto him we are returning.”
——-(AL QURAN-Sura Baqarah : 156)

“তাদেরকে সুসংবাদ দাও যে, তাদের প্রতি তাদের আল্লাহর নিকট হতে বিপুল অনুগ্রহ বর্ষিত হবে, আল্লাহর রহমত তারা লাভ করতে পারবে । আর প্রকৃতপক্ষে এসব লোকই সঠিক পথগামী ।”
——(আল কোরআন-সূরা বাকারা : ১৫৭) ।
“Such are they on whom are blessings from their Lord, and mercy. Such are the rightly guided.”
——-(AL QURAN-Sura Baqarah : 157)

“যে সব লোক বলে, আল্লাহ আমাদের রব এবং তারা এর উপর অটল হয়ে থাকে, নিঃসন্দেহে তাদের জন্যে ফেরেস্তা নাযিল হয়ে থাকে এবং তাদেরকে বলতে থাকে-ভয় পেয়োনা, চিন্তা করোনা, আর সেই জান্নাতের সুসংবাদ পেয়ে সন্তষ্ট হও তোমাদের নিকট যার ওয়াদা করা হয়েছে ।”
——(আল কোরআন-সূরা হা মিম আস সাজদা : ৩০) ।
“Lo ! those who say : Our Lord is Allah, and afterward are upright, the angels descent upon them, saying: Fear not nor grieve,but hear good tidings of the paradise which ye are promised.”
——-(AL QURAN-Sura Ha- Mim-As-Sajdah : 30)

“আমরা এই দুনিয়ার জীবনেও তোমাদের সঙ্গী-সাথী, আর পরকালেও । সেখানে তোমাদের মন যা কিছু চাইবে তা তোমরা পাবে । আর যে যে জিনিসের তোমরা দাবী করবে তাই তোমাদের হবে ।”
——(আল কোরআন-সূরা হা মিম আস সাজদা : ৩১)
“We are your protecting friends in the life of the world and in the hereafter . There ye will have (all) that your souls desire , and there ye will have (all) for which ye pray .”
——-(AL QURAN-Sura Ha- Mim-As-Sajdah : 31)

“এটাই হল মেহমানদারীর সামগ্রী সেই মহান আল্লাহর তরফ হতে যিনি অত্যন্ত ক্ষমাশীল ও দয়াবান ।”
——(আল কোরআন-সূরা হা মিম আস সাজদা : ৩২) ।
“A gift of welcome from the forgiving , the merciful .”
——-(AL QURAN-Sura Ha- Mim-As-Sajdah : 32)

“আর যারা ঈমান এনেছে এবং সৎ কর্ম করেছে,অবশ্যই আমি প্রবিষ্ট করাব তাদেরকে জান্নাতে ,যার তলদেশে প্রবাহিত রয়েছে নহরসমূহ ।সেখানে তারা থাকবে অনন্তকাল, সেখানে তাদের জন্য থাকবে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন স্ত্রীগণ ।তাদের আমি প্রবিষ্ট করাব ঘন ছায়া নীড়ে ।”                       —–[ আল কোরআন-সূরা নিসা :৫৭ ]
“And as for those who believe and do good works, We shall make them enter Gardens underneath which rivers flow to dwell therein for ever ; there for them are pure companions and We shall make them enter plenteous shade.”
—– [ Al-Quran -Sura Nisa : 57 ]

“মুত্তাকীদের জন্য যে জান্নাতের প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে তার দৃষ্টান্ত হচ্ছে, তাতে আছে নির্মল পানির ঝর্ণাধারা ।আছে দুধের ঝর্ণাধারা,যার স্বাদ অপরিবর্তনীয় ।আছে পান কারিদের জন্য সুস্বাদু সুরার ঝর্ণাধারা, আছে পরিশোধিত মধুর ঝর্ণাধারা ।”                                               —– [ আল কোরআন-সূরা মোহাম্মাদ :১৫ ]
“A similitude of the Garden which those who keep there duty(to Allah) are promised : Therein are rivers of water unpolluted , and rivers of milk whereof the flavour changeth not, and rivers of wins delicious to the drinkers, and rivers of clear-run honey.”
—–[  Al-Quran -Sura Muhammad : 15 ]

“যারা তাদের পালনকর্তাকে ভয় করত তাদেরকে দলে দলে জান্নাতের দিকে নিয়ে যাওয়া হবে ।যখন তারা উম্মুক্ত দরজা দিয়ে জান্নাতে পৌছবে এবং জান্নাতের রক্ষীরা তাদেরকে বলবে, তোমাদের প্রতি সালাম, তোমরা সুখে থাকো, অতঃপর সদা-সর্বদা বসবাস করার জন্য তোমরা জান্নাতে প্রবেশ করো ।”
—–[ আল কোরআন-সূরা যুমার :৭৩ ]
“And those who keep their duty to their Lord are driven unto the Garden in troops tills, when they reach it, and the gates thereof are opened , and the warders thereof say unto them : Peace be unto you ! Ye are good , so enter ye (the Garden of delight), to dwell therein.”                                                                                             —– [ Al-Quran -Sura Zumar : 73 ]

“আর যারা সত্য ত্যাগ করেছে, তাদের বাসস্হান হবে জাহন্নাম । যখনই ওরা জাহান্নাম থেকে বের হতে চাইবে, তখনই ওদেরকে জাহান্নামের মধ্যে ফিরিয়ে দেওয়া হবে এবং ওদেরকে বলা হবে, যে আগুনের শাস্তিকে তোমরা মিথ্যা বলতে, এখন তোমরা তার স্বাদ গ্রহণ কর ।”                       —– [ আল কোরআন-সূরা সিজদা :২০ ]
“And as for those who do evil , their retreat is the Fire. Whenever they desire to issue forth from thence , they are brought back thither . Unto them it is said : Taste the torment of the Fire which ye used to deny.”                                                    —– [  Al-Quran -Sura Sajdah : 20 ]

“জান্নাতিরা জাহান্নামিদেরকে ডেকে বলবে, আমাদের সাথে আমাদের প্রতিপালক যে ওয়াদা করেছিলেন,তা আমরা সত্যি পেয়েছি । অতএব,তোমরাও কি তোমাদের পালনকর্তার ওয়াদা সত্য পেয়েছো ? তখন তারা বলবে হ্যাঁ, অতঃপর একজন ঘোষক উভয়ের মাঝখানে ঘোষনা করবে, আল্লাহর অভিসম্পাত জালেমদের উপর ।”
—–[ আল কোরআন-সূরা আরাফ :৪৪ ]
“And the dwellers of the Garden cry unto the dwellers of the Fire : We have found that which our Lord promised us(to be) the Truth. Have ye(too) found that which your Lord promised the Truth ?  They say : Yea , verily. And a crier in between them crieth : The curse of Allah is on evildoers.”                                                                   —–[ Al-Quran -Sura A’Raf : 44 ]

“ফেরেস্তাদেরকে বলা হবে, ধর একে, গলায় বেরি পরিয়ে দাও, অতঃপর নিক্ষেপ করো জাহান্নামে ।অতঃপর তাকে শৃঙ্খলিত কর সত্তর গজ দীর্ঘ এক শিকলে ।নিশ্চয় সে মহান আল্লাহতে বিশ্বাসী ছিল না ।এবং মিসকীনকে আহার্য দিতে উৎসাহিত করতো না ।”                                     —–[ আল কোরআন-সূরা হাক্কাহ :৩০-৩৪ ]
“(It will be said): Take him and fetter him , And then expose him to hell-fire , And then insert him in a chain whereof the length is seventy cubits. Lo ! he used not to believe in Allah the Tremendous , And urged not on the feeding of the wretched.”
—– [ Al-Quran -Sura Haqqah : 30-34 ]

“তিনি সেই সত্তা, যিনি রাত, দিন এবং সূ্র্য, চাঁদকে সৃষ্টি করেছেন | প্রত্যেকেই তারা বৃত্তাকার পথে পরিভ্রমণ করছে |”—[ আল কোরআন-আম্বিয়া : ৩৩ ]
“And He it is Who created the night and the day, and the sun and the moon.They float,each in an orbit “—[Al Quran-Ambiya: 33 ]

“আকাশ ও ভূমির সৃষ্টিতে এবং রাত ও দিনের আবর্তনে রয়েছে বোধ-সম্পন্ন লোকদের জন্য অসংখ্য নিদর্শন |”—[ আল কোরআন-ইমরান : ১৯০ ]
“Lo ! In the creation of the heavens and the earth and (in) the difference of night and day are tokens (of His sovereignty) for men of understanding. “—[Al Quran-Imran: 190 ]

“অবিশ্বাসীরা কি চিন্তা ভাবনা করে না, এই আকাশ ও পৃথিবী সব কিছুই মিলিত অবস্থায় (একটি একক হিসাবে ) ছিল । পরে আমি এগুলিকে আলাদা করেছি ? এবং পানি হতে প্রত্যেক জীবন্ত জিনিসকে সৃষ্টি করেছি ? তারা কি স্বীকার করে না ?”—[ আল কোরআন-আম্বিয়া : ৩০ ]
“Have not those who disbelieve known that the heavens and the earth were of one piece, then We parted them, and We made every living thing of water ?  Will they not then believe ? “—[Al Quran-Ambiya: 30 ]

“আর তার নিদর্শন সমুহের মধ্যে এও রয়েছে যে, তিনি তোমাদেরকে বিদ্যুতের চমক দেখিয়ে থাকেন, ভয় সহকারে ও আশা-বাসনা সহকারেও,আর তিনি আকাশ থেকে পানি বর্ষন করেন, তারপর ভূমির মৃত্যুর পর তাকে এর সাহায্যে জীবন দান করেন | নিশ্চয় এতে অসংখ্য নিদর্শন রয়েছে সেই সকল লোকের
 জন্য, যারা জ্ঞান-বুদ্ধিকে কাজে লাগায় |”–[ আল কোরআন-রুম : ২৪ ]
“And of His signs in this : He showeth you the lighiting for a fear and for a hope, and sendeth down water from the sky, and thereby quickeneth the earth after her death. Lo : herein indeed are portents for folk who understand. “—[Al Quran-Rum: 24 ]

“আর তোমাদের জন্য গৃহপালিত চতুষ্পদ জন্তুদের মধ্যেও একটি শিক্ষণীয় বিষয় রয়েছে |তাদের পেট থেকে নিষিক্ত একপ্রকার পানি আমি তোমাদেরকে পান করাই | তাদের মধ্যে তোমাদের জন্য রয়েছে প্রভূত উপকারিতা এবং তা থেকে তোমরা খাও |”–[ আল কোরআন-মুমেনিন : ২১ ]
“And lo ! in the cattle there is verily a lesson for you. We give you to drink of that which is in there bellies and many uses have ye in them and of them do ye eat. “—[Al Quran-Muminun : 21 ]

“নিশ্চয় আকাশসমূহ ও পৃথিবীর সৃষ্টিতে  এবং দিন  রাত্রির  আবর্তনে জ্ঞানবানদের জন্য নিদর্শন রয়েছে । যারা আল্লাহকে  স্মরণ করে দাড়ানো, বসা এবং শোয়া অবস্থায় এবং তারা চিন্তা- গবেষণা  করে আকাশসমূহ এবং পৃথিবীর সৃষ্টি সম্পর্কে । তারা বলে হে প্রভূ  আপনি এসব বৃথা সৃষ্টি করেননি । আপনার জন্যই প্রশংসা । সুতরাং আমাদেরকে জাহান্নামের আগুন থেকে নিষ্কৃতি  দান করুন ।”—-[আল কোরআন-৩:১৯০-১৯১]

“Lo! in the creation of the heavens and the earth and (in) the difference of night and day are tokens (of His sovereignty) for men of understanding. Such as remember Allah,standing,sitting,and reclining and consider the cretion of the heavens and the earth,(and say): Our Lord !Thou createdst not this in vain.Glory be to Thee !Preserve us from the doom of fire.”—[Al Quran-3:190-191]

 

“তার চাইতে উত্তম কথা আর কার হবে,যে মানুষকে  আল্লাহর দিকে  ডাকলো,ভালো কাজ করলো,আর বললো আমি মুসলমান।—[আল কোরআন-৪১:৩৩]

“And who is better in speech than him who prayeth unto his Lord and doeth right, and saith:Lo! I am of those who surrender (unto Him).”—[Al Quran-41:33]

“তোমরা কি কখনও চিন্তা করেছো,যে বীজ তোমরা বুনো,তা হতে ফসল উৎপাদন তোমরা না আমি করি ? আমি চাইলে ইহাকে ভূষি করতে পারি ।”—[আল কোরআন-৫৬:৬৩-৬৫]

“Have ye seen that which ye cultivate ? Is it ye who foster it, or are We the Fosterer ? If We willed,We verily could make it chaff, then would ye cease not to exclaim.”—[Al Quran-56:63-65]

 

“মানুষের মধ্যে তোমরাই সর্বোত্তম জাতি,একারণে যে তোমরা মানুষকে ভাল কাজে (কোরআনের দিকে) আহ্বান করবে এবং মন্দ কাজে বাধা প্রদান করবে”।—[আল কোরআন-৩:১০৪]

“And there may spring from you a nation who invite to goodness,and enjoin right conduct and forbid indecency.Such are they who are successful.”—[Al Quran-3:104]

QHSRC